খুনের ইচ্ছা


আমার খুনের ইচ্ছা

একজন, যে কোন পথচারীকে ডেকে এনে
খুন করতে পারি দৃশ্যত এমন
নির্জনতা আমার আছে

নিমগাছ তুখোড় অথিতিশালা, একটি সদয় টোপও
বাগানের পাখিসুদ্ধ, হাসিমুখ
গিলছে

পথচারী, দু’পা এগিয়ে ভড়কে গেলে:
চিরহরিৎ একমুখ হাসি
হেসে, বলবো-
অন্ধকারে না দেখার কিছুতো নাই
আসো; দৃঢ় পায়, অই
দেখো, রাঁজহাস;
আমার পালিত স্ত্রীর
নাম...
কি ধবধবে শাদা! কি শাদা!
শব্দের ডান-
দিকটা হেলে গেছে হয়তো, তা যাক
তা যাক
অমন হয়ই কিছু, হয়ে থাকে...

দেখো, সম্মুখে, সদাকার হাসি
যেন জানালাটা বাতাস চুষে নিচ্ছে
দিনের
পর দিন
একটিই জানালা
বাঁক ঘুরে চম্পট দিতে জানে, তারও আছে
তরিকরকারি মন
তিতা, আহ্লাদে ভরা
মিষ্টি, ময়ূরমুখ

অইতো অই
আমাদের যাওয়ার দিকের বাড়ি
গেলেই দেখতে পাবে পোশাকের
পায়চারী,
ডাক দিলেই  ধন্যবাদ ঝরে ঝরে পড়ছে

খুব হুল্লোড়, তাই? অতো দূর থেকেও?
জানো, পথচারী
একারাই যাচ্ছেতাই ফোঁটে
বড়ো অসাধারণ!